গোপালায় নমোহস্তু মে

গোপালায় নমোহস্তু মে তখন ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর সংস্কৃত কলেজের ছাত্র। পণ্ডিত জয়গোপাল তর্কালঙ্কার তাদের সংস্কৃত কাব্যশাস্ত্র পড়াতেন। একদিন তিনি শ্রেণীকক্ষে পাঠ নিতে এসে ছাত্রদের বললেন, ‘তোমরা সবাই ‘গোপালায় নমোহস্তু মে’-এই...
বাকিটুকু পড়ুন

সাগরের নোনা জল

সাগরের নোনা জল পন্ডিত ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর ছিলেন পুরোপুরি আধুনিক চিন্তা মনস্ক ব্যক্তি। কোনো রকম গোঁড়ামো তার ছিল না। তাই দেবতা নয়, তিনি বড় করে দেখতেন মানুষকেই। তিনি ছিলেন ব্ৰাহ্মাণ...
বাকিটুকু পড়ুন

দুরবস্থা

দুরবস্থা ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর একদিন নিজের বৈঠকখানায় ব’সে অন্তরঙ্গ বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে রঙ্গ রসিকতায় মেতে আছেন। তার মাঝে উঠছে সমাজ সংস্কারমূলক বিভিন্ন প্রসঙ্গ। এমন সময় এক বৃদ্ধ ব্যক্তি ঘরে ঢুকলেন। তাঁর...
বাকিটুকু পড়ুন

গৃহিনী রোগ

গৃহিনী রোগ এক বন্ধুর সঙ্গে দেখা হতে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর বললেন, ‘কী হে বন্ধু, তোমরা আজকাল প্রচার করে বেড়ােচ্ছ আমার নাকি গৃহিনী রোগ হয়েছে?’ অবাক বন্ধুটি বললেন, ‘ঠিক বুঝলাম না...
বাকিটুকু পড়ুন

বিবাহ বাসর

বিবাহ বাসর নিজের বিবাহ বাসরকে রঙ্গ-রসিকতায় ভরিয়ে তুলেছিলেন বিদ্যাসাগর। কী রকম ? বন্ধুদের কাছে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর বলেন, ‘বিয়ের পর বাসরে প্রবেশ করা মাত্র কনে পক্ষের রমণীরা আমাকে বলে–বর, তোমার...
বাকিটুকু পড়ুন

খাদ্য রসিক

খাদ্য রসিক বিদ্যাসাগর খেতে ও খাওয়াতে খুবই ভালবাসতেন। কখনো কখনো তিনি অতিথিদের নিজের হাতে রান্না করে খাওয়াতেন। খাদ্যসামগ্ৰী পরিবেশনের সময় তিনি ছড়া কেটে বলতেন: ‘হুঁ হুঁ দেয়ং হাঁ হাঁ...
বাকিটুকু পড়ুন

পৈতেগাছা ও রাঁধুনি

পৈতেগাছা ও রাঁধুনি ডিরোজিওর ছাত্র ছিলেন রামতনু লাহিড়ী। তিনি ছিলেন ইয়ং বেঙ্গল-এর সভ্য। এক সময় বিদ্যাসাগরের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠতা হয়। রামতনু একবার পিতার নিষেধ অমান্য করে ব্ৰাহ্ম হয়ে কাশীতে...
বাকিটুকু পড়ুন

ময়ান

ময়ান বিদ্যালয় পরিদর্শক বিদ্যাসাগর একবার গ্রামের এক বিদ্যালয় পরিদর্শন করতে গেছেন। সেখানে এক সাধারণ মধ্যবিত্ত গৃহস্থ বিদ্যাসাগরকে তাঁর গৃহে দুপুরের আহার করবার নিমন্ত্রণ জানালেন। গৃহন্থের অনুরোধ উপেক্ষা করতে পারলেন...
বাকিটুকু পড়ুন

একগুঁয়ে এঁড়ে বাছুর

একগুঁয়ে এঁড়ে বাছুর বিদ্যাসাগর ছেলেবেলা থেকেই ছিলেন খুব একাগুঁয়ে। তিনি যা ভালো মনে করতেন তা তিনি প্ৰাণপণে করতে চেষ্টা করতেন। কখনো কখনো তিনি ঠিক উল্টো কাজ করতেন বলে জানা...
বাকিটুকু পড়ুন

মৃত্যুর পর স্বর্গবাস

মৃত্যুর পর স্বর্গবাস ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর নানা ধরনের ব্যক্তির সঙ্গে মেলামেশা করতেন। তার এক পরিচিত ব্যক্তি হঠাৎ প্ৰথমা পত্নীর বিয়োগের পরেই আবার বিবাহ করলেন। ব্যক্তিটির দ্বিতীয় বিবাহের পর একদিন বিদ্যাসাগরের...
বাকিটুকু পড়ুন

নতুন উপাধি

নতুন উপাধি ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর রাজদরবারে নতুন উপাধি পেয়েছেন। এই উপাধি পাওয়ার খবর গ্রামে গ্রামে ছড়িয়ে পড়ল। যারা তাঁকে পছন্দ করতেন তাঁরা খুশি হলেন, যাঁরা তাঁকে অপছন্দ করতেন তাদের মুখভার...
বাকিটুকু পড়ুন

নিরামিষাশী

নিরামিষাশী বিদ্যাসাগরের পিতা ঠাকুরদাস তাঁর ছোটছেলে ঈশানচন্দ্র ও বড় নাতি নারায়ণ (বিদ্যাসাগরের পুত্ৰ) কে অত্যন্ত স্নেহ করতেন। তাঁর মেহের বহর এতটাই ছিল যে, কেউ এই দু’জনকে শাসন করতে সাহস...
বাকিটুকু পড়ুন

বলিদান

বলিদান ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর তপন বিটন কলেজের সেক্রেটারি। অনেক উচ্চপদস্থ সাহেবও তখন কমিটির সদস্য। এক ফিরিঙ্গি ভদ্রমহিলা তখন প্রধান শিক্ষয়িত্রী ছিলেন । কোনো বিশেষ কারণে ঐ ভদ্রমহিলা কলেজের এক পণ্ডিতের...
বাকিটুকু পড়ুন

সরস্বতী পূজা

সরস্বতী পূজা ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর তখন সংস্কৃত কলেজের ছাত্র। তাঁদের কাব্যশাস্ত্রর অধ্যাপক ছিলেন জয়গোপাল তর্কলংকার; তিনি সরস্বতী পুজো উপলক্ষে ছাত্রদের একটি শ্লোক লিখতে বললেন। ছাত্রদের তিনি এই রকম শ্লোক মাঝেমাঝেই...
বাকিটুকু পড়ুন

ব্রাহ্মণ বনাম ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর

ব্রাহ্মণ বনাম ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের কাছে সবধরনের মানুষ দেখা করতে আসতেন। ব্রাহ্মণেরা যেমন আসতেন, তেমন অব্রাহ্মণরাও আসতেন। একদিন বিদ্যাসাগরের সঙ্গে এক ব্ৰাহ্মাণ দেখা করতে এলেন। সেই ব্ৰাহ্মাণ ছিলেন গোঁড়া।...
বাকিটুকু পড়ুন

স্নানপর্ব

স্নানপর্ব রায় বাহাদুর কালিপ্ৰসন্ন ঘোষ ছিলেন ‘বান্ধব’ পত্রিকার সম্পাদক। তিনি একবার এসেছেন বিদ্যাসাগরের বাড়িতে। গৃহস্বামী বিদ্যাসাগর অতিথির আপ্যায়নের ত্রুটি রাখলেন না। বিভিন্ন পদের খাবার রান্না হল কালিপ্ৰসন্নর জন্য। কালিপ্ৰসন্ন...
বাকিটুকু পড়ুন

প্রাচীন আচার

প্রাচীন আচার পণ্ডিত ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর বহুবিবাহ-বাল্যবিবাহ সহ নানা রকম সামাজিক কুসংস্কার রোধ করার জন্য এগিয়ে এসেছিলেন। তিনি স্ত্রী শিক্ষা বিস্তারে সচেষ্ট ছিলেন। তাই চারিদিকে বালিকা বিদ্যালয় স্থাপন করেছিলেন। এইসব...
বাকিটুকু পড়ুন

বিদ্যালয় পরিদর্শক

বিদ্যালয় পরিদর্শক পণ্ডিত ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর ছিলেন দেশের প্রথম বিদ্যালয় পরিদর্শক। এই কাজে তাকে বিভিন্ন বিদ্যালয় পরিদর্শন করতে যেতে হত। একবার এক বিদ্যালয় পরিদর্শন করতে গিয়ে শ্রেণীকক্ষে ঢুকে তো তার...
বাকিটুকু পড়ুন

শুঁড় তোলা চটি

শুঁড় তোলা চটি ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর নিয়মিত বিভিন্ন সাহিত্য সভায় যেতেন। এক সাহিত্য সভায় তার দেখা হল সাহিত্যসম্রাট বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে। বঙ্কিমের পরণে সৌখিন পোশাক । কিন্তু বিদ্যাসাগরের সেই চির...
বাকিটুকু পড়ুন

ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগরের ভোজন সভা

ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগরের ভোজন সভা ঈশ্বরচন্দ্ৰ বিদ্যাসাগর ছিলেন অত্যন্ত ভোজন রসিক। খেতে এবং খাওয়াতে তিনি বড় ভালবাসতেন। তিনি কয়েকজন অন্তরঙ্গ বন্ধুকে নিয়ে ‘ভোজন সভা’ নামে একটি সংস্থা গড়ে তুলেছিলেন। সংস্থার...
বাকিটুকু পড়ুন