ডিসিশন

মংপুতে থাকার সময় রবীন্দ্রনাথ একদিন লেখিকা মৈত্ৰেয়ী দেবীর স্বামী ডাক্তার মনমোহন সেনকে বললেন, ‘তোমরা সপরিবারে একবার কলকাতায় চলো।’

মনমোহন বললেন, ‘গুরুদেব, আমার এখন অনেক কাজ, এখন কী করে যাই বলুন?’

কিন্তু কবি না-ছোড়। সেই সময় ঘরে ঢুকলেন মৈত্ৰেয়ী দেবী। তাঁকে দেখে কবি বললেন, ‘ও মৈত্ৰেয়ী, তোমাদের সবার কলকাতায় যাবার ব্যবস্থা করে ফেললুম।’

একথা শুনে মনমোহন তো অবাক! মৈত্ৰেয়ী দেবী বললেন, ‘আমরাও সেই আলোচনাই করছিলাম। কিন্তু ওঁর যে অনেক কাজ!’

কবি তখন বললেন, ‘শোনো, একবার যখন দক্ষিনাচরণ সেন হয়ে গেছে তখন আর চিন্তা কিসের?’

মৈত্ৰেয়ী দেবী ভ্রূ কুঁচকে বললেন, ‘গুরুদেব, দক্ষিনাচরণ সেন আবার কে?’

রবীন্দ্ৰনাথ মুচকি হেসে বললেন, ‘সে কী! তোমরা দক্ষিণাচরণ সেনকে জানো না? যার নাম ডি সি সেন অর্থাৎ ডিসিশন! সেই ডিসিশন যখন একবার হয়ে গেছে তখন আর তো পরিবর্তন করা যাবে না, বুঝলে?’

কী আর করা যায়। কবির কথা মেনে নিয়ে মনমোহন হাসতে হাসতে বললেন, ‘চলুন, চলুন, তাহলে কলকাতা ঘুরেই আসি।’

এ কথা শুনে মৈত্ৰেয়ী দেবী হাততালি দিয়ে উঠলেন।

%d bloggers like this: